‘মেরা তওফা, মেরি মর্জি’

প্রধানমন্ত্রী থাকাকালে প্রাপ্ত উপহার নিয়ে ইমরান খান বলেছেন, উপহারগুলো আমি পেয়েছি এবং সেগুলো জমা দেব কি না, সেটা আমার ইচ্ছা।

0 10,264

পাকিস্তান তেহেরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই) চেয়ারম্যান বলেন, ‘মেরা তওফা, মেরি মর্জি’ অর্থাৎ আমার উপহার, আমার ইচ্ছা।

ইমরান খান পাকিস্তানের প্রথম প্রধানমন্ত্রী যিনি অনাস্থা ভোটে ক্ষমতা হারিয়েছেন। গত সপ্তাহে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরিফ অভিযোগ করেন, ইমরান খান তার মেয়াদে যেসব উপহার পেয়েছিলেন সেগুলো তোষাখানার (কোষাগার) উপহার। তিনি সেগুলো দুবাইয়ে ১৪ কোটি রুপিতে বিক্রি করেছেন।

শাহবাজ খান বলেন, ইমরান খান যেসব দামি উপহার বিক্রি করেছেন তার মধ্যে রয়েছে হিরার সেট, ব্রেসলেট ও হাতঘড়ি।

জিয়ো নিউজের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সাবেক প্রধানমন্ত্রী তার সাড়ে তিন বছরের মেয়াদে ৫৮টি উপহার পেয়েছিলেন। যেগুলোর মূল্য ১৪ কোটি রুপি।

১৯২৩ সালের অফিশিয়াল সিক্রেক্টস অ্যাক্ট অনুযায়ী, যখন রাষ্ট্রের প্রধান অন্য কোনো রাষ্ট্রের কাছ থেকে কিছু ‍উপহার হিসেবে পাবেন, তা তোষাখানায় জমা দিতে হবে। কিন্তু যদি তারা সেই উপহার নিজের কাছে রাখতে চান, তবে ওই জিনিসের সমমূল্য অর্থ পরিশোধ করতে হবে। তবে সেটি নির্ধারিত হবে নিলামের মাধ্যমে।

খান বলেন, আমি আমার বাসভবনে রাষ্ট্রপতির পাঠানো একটি উপহার জমা দিয়েছিলাম। তোষাখানা থেকে যা নিয়েছি তা রেকর্ডে আছে। আমি ৫০ শতাংশ মূল্য দিয়ে উপহার কিনেছি।

তিনি বলেন, পিটিআই সরকার উপহার ধরে রাখার নীতি পরিবর্তন করেছে এবং দাম ১৫ থেকে ৫০ শতাংশ বাড়িয়েছে। ইমরান খান বলেন, আমি যদি অর্থ উপার্জন করতে চাইতাম, আমি আমার বাড়িটিকে ক্যাম্প অফিস হিসেবে ঘোষণা করতাম। কিন্তু আমি তা করিনি।

এদিকে ইমরান খানের বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু করেছে দেশটির ফেডারেল ইনভেস্টিগেশন এজেন্সি (এফআইএ)। অভিযোগ, ইমরান ক্ষমতায় আসার শুরুর দিকে একটি বিলাসবহুল নেকলেস উপহার হিসেবে পান। সেটি রাষ্ট্রীয় উপহার ভান্ডারে জমা না দিয়ে এক জুয়েলার্সের কাছে ১৮ কোটি রুপিতে বিক্রি করে দিয়েছেন।

এর আগে পিটিআইকে রাজনৈতিক অঙ্গন থেকে সরিয়ে দিতে গভীর ষড়যন্ত্র চলছে বলে অভিযোগ করেন পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও দলটির নেতা ইমরান খান। 

Leave A Reply

Your email address will not be published.