‘ডট’ বলের সেঞ্চুরি, আফগানদের টুঁটি চেপে ধরেছে বাংলাদেশ

আফগানিস্তানের অধিনায়ক এখন কি ভাবছেন যে টস জিতে ব্যাটিং নিয়ে ভুলই হয়ে গেছে! ভাবুক বা না ভাবুক। তবে সফরকারীরা খুব যে একটা ভালো অবস্থানে নেই সেটি আর বলার অপেক্ষা রাখে না। ৩০০ বলের খেলায় প্রথম ১৫০ বলের ১০৫ বলই ডট। তার মানে এ বলগুলোতে কোনো রান তুলতে পারেনি আফগান ব্যাটাররা।

0 9,922

শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত আফগানিস্তানের সংগ্রহ ৩১ ওভার শেষে ৪ উইকেট হারিয়ে ১২২ রান। দলীয় শতরানের ঘরে পৌঁছাতেই আফগান ব্যাটাররা খরচ করেছে ২৮ ওভার!

এর আগে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে মুস্তাফিজের করা ইনিংসের প্রথম ওভারের দ্বিতীয় বলেই চার হাঁকিয়েছিলেন আফগান ওপেনার রহমতউল্লাহ গুরবাজ। তৃতীয় ওভারে সেই গুরবাজকেই চারের খেসারত দিতে হয়। মুস্তাফিজের বলে এগিয়ে এসে মারতে চেয়েছিলেন। কিন্তু ব্যাটে বলে ঠিকমতো হয়নি। অনেক উঁচুতে ওঠা ক্যাচ মিড অনে ধরেছেন তামিম।

দলীয় ১১ রানে ভাঙে আফগানিস্তানের উদ্বোধনী জুটি। প্রথম ওভারে ৭ রান দেওয়ার পর নিজের দ্বিতীয় ওভারে মুস্তাফিজ দিলেন মাত্র ৩ রান। এরপরের ওভারে কাটার মাস্টার দিলেন মাত্র ১ রান! মুস্তাফিজের বলে বেশ ভোগান্তিতে আফগান টপ অর্ডার।

তাসকিনের বল ডিপ স্কয়ার লেগে উড়িয়ে মেরেছিলেন ইব্রাহিম। কিন্তু বলের দিকে না গিয়ে ক্যাচ নিজের কাছে আসার জন্য অপেক্ষা করতে গিয়েই গড়বড় পাকিয়ে ফেলেন মাহমুদউল্লাহ। ফলাফল আরেকটি উইকেট পতনের সুযোগ পেয়েও হলো না। ক্যাচ মিস বাই মাহমুদউল্লাহ।

ইনিংসের দ্বিতীয় বলে মুস্তাফিজকে চার মেরেছিলেন রহমানউল্লাহ গুরবাজ। ৩৭ বল পর সপ্তম ওভারের তৃতীয় বলে সেই ফিজের বলেই আফগান ইনিংসের দ্বিতীয় চারটি মারলেন রহমত শাহ।

১১ রানের মাথায় প্রথম উইকেট হারানোর পর দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে সেই ধাক্কা সামাল দেন রহমত ও ইব্রাহিম। টার্গেট বানান তাসকিন। অষ্টম ওভারে তার করা বলে চার-ছক্কা মেরে যেন পুষিয়ে নিচ্ছিলেন দুই ব্যাটার।

তাসকিনের খরুচে ওভারের পর নবম ওভারে তামিম বল তুলে দেন সাকিবকে। এসেই মেইডেন। কোনো রান দেননি।

মুস্তাফিজের পর আফগান শিবিরে দ্বিতীয় আঘাত শরিফুলের। ১১ রানে প্রথম উইকেট হারানো আফগানিস্তানের হয়ে দ্বিতীয় উইকেটে ৪৪ রানের জুটিতে ধীরে ধীরে আগ্রাসী হয়ে উঠছিলেন ইব্রাহিম ও রহমত। অবশেষে মুস্তাফিজ ভাঙেন আফগানদের দ্বিতীয় উইকেট জুটি। তার করা গুড লেংথের বল কাভার ড্রাইভ করতে গিয়েছিলেন আফগান ব্যাটার ইব্রাহিম। কিন্তু ব্যাটের কানায় লেগে স্লিপে ইয়াসিরের হাতে ধরা পড়েন ইব্রাহিম।

তাসকিন দুর্ভাগাই বটে। তার বলে ক্যাচ ছাড়া যেন বাংলাদেশের খেলোয়াড়দের জন্য রোজকার দৃশ্য হয়ে দাঁড়িয়েছে। আজও প্রথম দিকে বেশ কয়েকটি ক্যাচ মিসে উইকেট বঞ্চিত হন তাসকিন। তবে শেষমেশ উইকেটের দেখা পেলেন। নিজের দ্বিতীয় স্পেলের দ্বিতীয় ওভারের শেষ বলে এসে অবশেষে উইকেটের দেখা পেলেন বাংলাদেশের পেসার। বাড়তি বাউন্স সামলাতে পারেননি আফগান ব্যাটার রহমত। ব্যাটের কানায় লেগে উইকেটকিপার মুশফিকের বিশ্বস্ত গ্লাভসে চলে যায় বল।

একপ্রান্তের ব্যাটারদের যাওয়া-আসার মিছিলে অন্য প্রান্তে আগ্রাসী হয়ে উঠছিলেন আফগান অধিনায়ক। তাকে ফেরাতে দুই প্রান্ত থেকেই অফ স্পিনারকে নিয়ে আসেন তামিম। সুফলও পান হাতেনাতে। মাহমুদউল্লাহর বলে কাট করতে গিয়ে মুশফিকের হাতে ধরা পড়লেন। ৪৩ বলে ৩ চার ও ১ ছক্কায় ২৮ রান করে ফিরেছেন আফগান অধিনায়ক। 

Leave A Reply

Your email address will not be published.