আর্জেন্টিনাকে ঢাকায় আনতে তাড়াহুড়োর কিছু নেই: ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী

0 19,801

 

জুনে ঢাকায় খেলা হচ্ছে না মেসির আর্জেন্টিনার, সেটা পুরনো খবর। এ মৌসুমে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামের সংস্কার কাজ সম্পূর্ণ হবে না বলেই আর্জেন্টিনাকে ‘না’ করে দিয়েছে বাফুফে। তাহলে পরে কি বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের ঢাকায় আনার সম্ভাবনা আছে?

যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মো. জাহিদ আহসান রাসেল এমপি বলেছেন, পরবর্তীতে তো আনা যেতেই পারে। তবে তিনি এ নিয়ে তাড়াহুড়ো করতে চান না। কারণ, যেখানে মেসিদের খেলানো হবে সেই বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামের সংস্কারের অনেক কাজ এখনো বাকি।

এ মাসেই ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী সাক্ষাৎ করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে। এ সাক্ষাতের প্রধান উদ্দেশ্যই হলো বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামের ডিজাইন প্রধানমন্ত্রীকে দেখিয়ে অনুমোদন করানো।

এর আগে তিনি বলেছিলেন, বাফুফের চলমান ইস্যু নিয়ে কথা বলবেন প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেছেন, ‘বাফুফেতে এ ধরনের বিষয় হওয়ার পরে প্রধানমন্ত্রী জাপান, ইউএসএ ও ইউকে সফরের জন্য ওনার একটা বিজি সিডিউল ছিল। এ কারণে আমরা সাক্ষাত করতে পারিনি। ১৪ মে অন্য একটি বিষয় নিয়ে আমরা প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করবো। তবে বাফুফে বিষয়ে নয়। বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামের আপগ্রেডেশন, শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়াম নিয়ে আমরা প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করবো। তখন আমরা বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামের ডিজাইন তাঁকে দেখাবো।’

স্টেডিয়াম সংস্কারের বর্ধিত বাজেট অর্থমন্ত্রণালয় অনুমোদন দিয়েছে শর্তসাপেক্ষে। ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘আপনারা জানেন, আমাদের এ প্রকল্পে কিছু অর্থ বেড়েছে। যে শেড আছে তার চেয়ে বাড়াবো বলে আমাদের অর্থও বেড়েছে। আমাদের ফ্লাডলাইট ছিল নরমাল। বাফুফের চাহিদা মোতাবেক এখন এলইডি লাইটে করছি। যার কারণে, আমাদের প্রায় দ্বিগুণ টাকা লাগছে। অর্থ মন্ত্রণালয় আমাদের বর্ধিত বাজেট অনুমোদন দিয়েছে। শর্ত ছিল প্রধানমন্ত্রীকে ডিজাইন দেখানো সাপেক্ষে অনুমোদিত। আমরা প্রধানমন্ত্রীকে যখন ডিজাইন দেখাবো তখন ফুটবল ও অন্যান্য খেলাধুলার বিষয় নিয়ে আলাপ করবো।’

আর্জেন্টিনার জুনে আসা হচ্ছে না বাফুফে তাদের না করে দেওয়ায়। বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের পরবর্তীতে আসার সম্ভাবনা আছে কিনা জানতে চাইলে ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘পরবর্তীতে তো আসতে পারে। তবে স্টেডিয়ামে কাজ চলছে এমন একটা অবস্থায় তো সম্ভব না। কারণ, এখানে যে শুধু আমাদের মিডিয়া থাকবে তা নয়। আন্তর্জাতিক মিডিয়া এখানে থাকবে। একটা অসম্পূর্ণ স্টেডিয়ামে যদি খেলা হয়, যেখানে এখন পর্যন্ত আমরা ফ্লাডলাইটও কনফার্ম করতে পারিনি। অনেক কিছুই আমরা করতে পারিনি। হয়তো মাঠ প্রস্তুত হয়ে যাবে। একটা অসম্পূর্ণ জায়গায় করলে দেশের ভাবমূর্তি নষ্ট হবে। যে কারণে আমরা বলেছি একটু সময় নিয়ে উদ্যোগ নিতে। কারণ, তাড়াহুড়োর তো কিছু নেই। আমরা যদি একটু সময় নিয়ে করতে পারি তাহলে দেশের ভাবমূর্তির জন্যও ভালো হবে, সবার জন্যই ভালো হবে।

কবে নাগাদ শতভাগ সম্পূর্ণ হতে পারে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামের সংস্কার কাজ? প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘এটা যেহেতু প্রধানমন্ত্রীকে দেখানো সাপেক্ষে অনুমোদন তাই সময় লাগবে। বাফুফে থেকে এলইডি ফ্লাডলাইটের কথা বলা হয়েছে। যে কারণে, অর্থ বেড়েছে। এর অনুমোদনেরও প্রয়োজন আছে। প্রধানমন্ত্রী যতক্ষণ পর্যন্ত অনুমোদন না দেবেন ততক্ষণ পর্যন্ত কাজ শুরু করা যাবে না। এজন্য সঠিক করে বলতে পারছি না ঠিক কবে নাগাদ স্টেডিয়ামের সংস্কার কাজ শতভাগ সম্পূর্ণ হবে। তবে, যত দ্রুত সম্ভব আমরা কাজটা শেষ করবো।’

আরআই/এমএমআর/জেআইএমjn24

Leave A Reply

Your email address will not be published.