ক্ষমা চেয়ে সিইসি বললেন, বন্দুক নিয়ে প্রতিরোধ ছিল কথার কথা

প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেছেন, তলোয়ারের বদলে বন্দুক নিয়ে প্রতিরোধ করার কথাটি ছিল কথার কথা। সেটি জাতীয় পর্যায়ে এভাবে নিয়ে আসা ঠিক হয়নি। এমন বক্তব্যের জন্য ক্ষমা চেয়েছেন তিনি।

0 8,913

মঙ্গলবার (১৯ জুলাই) দুপুর ১২টার দিকে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে আসে ইসলামী ঐক্যজোট। আসছে দ্বাদশ সংসদ নির্বাচন সুষ্ঠু করতে নানা পরামর্শের পাশাপাশি তাদের বক্তব্যে উঠে আসে সংলাপের প্রথম দিনে অস্ত্র নিয়ে প্রতিরোধ সংক্রান্ত সিইসি’র বক্তব্যের বিষয়।

পরে পাল্টা বক্তব্যে সিইসি বলেন, সেদিনের সেই বক্তব্য ছিল হাস্যরসাত্মক অথচ গণমাধ্যমে এটি ফলাও করে প্রচার করা হয়েছে। তবু এমন কথার জন্য এ সময় ক্ষমা চান তিনি।

এদিন নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে রাজনৈতিক দলের সংলাপের তৃতীয় দিনের সকালের বৈঠকটা ছিল কল্যাণ পার্টির সঙ্গে। তবে কমিশনের ডাকে সাড়া দেয়নি বিএনপির সঙ্গে জোটবদ্ধ এ দলটি।

এ সময় সিইসি মন্তব্য করে বলেন, সরকারের সদিচ্ছা থাকলে নির্বাচনকালীন সময় সরকারের আকার ছোট করতে পারেন। তবে এজন্য সরকারকে কমিশন বাধ্য করতে পারে না।

হাবিবুল আউয়াল বলেন, নির্বাচনকালীন সরকারের আকার কতটুকু হবে সেটি নির্ভর করে সরকারের ওপর; এখানে কমিশনের কোনো কিছু করার নেই।

তবে নির্বাচনকালীন সরকার যেমনই হোক নিজেদের সাংবিধানিক ক্ষমতা পুরোপুরি প্রয়োগ করে একটি সুষ্ঠু নির্বাচনের প্রতিজ্ঞা করেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার।

কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেন, জাতীয় সাধারণ নির্বাচন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কারণ এটা দিয়েই কিন্তু সংসদ সদস্যরা নির্বাচিত হবেন। সংসদ গঠন করবেন। আর সেই সংসদ থেকে উঠে আসবে কেবিনেট বা সরকার। সেদিক থেকে এর গুরুত্ব অপরিসীম।

সিইসি আরও বলেন, সেই লক্ষ্যে যেটা প্রাসঙ্গিক, একটা সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ, অবাধ, অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন, যেখানে ভোটাররা নির্বিঘ্নে তাদের ভোট দিতে পারবেন। অনেক সময় তর্ক-বিতর্ক হয় যে নির্বিঘ্নে ভোট দিতে পারে না।

সংলাপে ইসলামী ঐক্যজোটের চেয়ারম্যান মাওলানা আবুল হাসানাত আমিনীর নেতৃত্বে ১১ সদস্যের প্রতিনিধি দল অংশ নেয়। এতে সিইসির সঙ্গে চার নির্বাচন কমিশনারসহ ইসির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা অংশ নেন।

রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে সংলাপে ভোটের মাঠে তলোয়ারের বিপরীতে রাইফেল নিয়ে দাঁড়ানোর পরামর্শ দিয়ে সমালোচনায় পড়েছেন সিইসি কাজী হাবিবুল আউয়াল।

নির্বাচন নিয়ে রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে রোববার সংলাপ শুরু করেছে ইসি।

এদিন নির্বাচন ভবনে সকাল সাড়ে ১০টায় জাতীয়তাবাদী গণতান্ত্রিক আন্দোলন-এনডিএমের সঙ্গে আলোচনায় আনুষ্ঠানিক বক্তব্যে তলোয়ার-রাইফেলের প্রসঙ্গ আনেন সিইসি।

এনডিএমের সঙ্গে সংলাপে সিইসি লিখিত বক্তব্যে ভোটের মাঠে কেউ শক্তি প্রদর্শন করলে প্রতিরোধ করার পরামর্শ দিয়ে তিনি বলেন, ‘আপনাদের সমন্বিত প্রয়াস থাকবে, কেউ যদি তলোয়ার নিয়ে দাঁড়ায়, আপনাকেও কিন্তু রাইফেল বা আরেকটি তলোয়ার নিয়ে দাঁড়াতে হবে।’

Leave A Reply

Your email address will not be published.