৫৯ বল হাতে রেখে শ্রীলঙ্কাকে হারাল আফগানিস্তান

এশিয়া কাপের উদ্বোধনী ম্যাচে শনিবার (২৭ আগস্ট) শ্রীলঙ্কাকে ৮ উইকেটে হারিয়েছে আফগানিস্তান। লঙ্কানদের দেয়া ১০৬ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে ২ উইকেট হারিয়ে মাত্র ১০.১ ওভারেই জয়ের বন্দরে নোঙর করেছে মোহাম্মদ নবি বাহিনী।

0 12,953

দুবাই আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে রান তাড়া করতে নেমে হযরতউল্লাহ জাজাঈ ও রহমানের গুরবাজের উদ্বোধনী জুটিতে ৯৪ রান তোলে আফগানিস্তান। গুরবাজ ১৮ বলে ৪০ রান করে হাসারাঙ্গার শিকার হন। আফগানরা দ্বিতীয় উইকেটটি যখন হারায় তখন জয়ের জন্য তাদের আর দরকার ছিল ৩ রান। দলকে জয় এনে দিতে শেষ পর্যন্ত জাজাঈ ৩৭ রানে অপরাজিত ছিলেন। নাজিবউল্লাহ জাদরান করেন ২ রান।

এর আগে আফগানিস্তানের বোলিং তোপে উইকেট হারিয়ে ১০৫ রান করে শ্রীলঙ্কা। আফগানিস্তানের ফজলহক ফারুকী আর নাভিন উল হকের প্রথম দুই ওভারেই একপ্রকার ধস নেমে যায় শ্রীলঙ্কার ব্যাটিং লাইন-আপে। মাত্র ৫ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে ফেলে লঙ্কা শিবির। নিজের প্রথম ওভারে ৩ রান দিয়ে ২ উইকেট শিকার করেন বিপিএল দিয়ে পরিচিত হয়ে ওঠা ফজলহক। ওপেনার কুশাল মেন্ডিসকে আউট করার পর চারিথ আসালাঙ্কাকে করা তার ওভারের শেষটি বলটি পিচ করেই ভেতরে ঢুকে যায়। ফলাফল তো হাতেনাতেই- সাজঘরে লঙ্কান ব্যাটার।

পরের ওভারে চমক দেখান নাভিন। প্রায় প্রতিটি বলেই সুইং পাচ্ছিলেন তিনি। যে কারণে শ্রীলঙ্কার ব্যাটাররাও ব্যাট চালানোর তেমন সুযোগ পাননি। নাভিন ২ রান দিয়ে তুলে নেন পাথুম নিসাঙ্কার উইকেট। উইকেটের পেছনে রহমানউল্লাহ গুরবাজকে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন নিসাঙ্কা। তিন উইকেট হারিয়ে ফেললেও রানের চাকা কিছুটা হলেও সচল রাখার চেষ্টা করে শ্রীলঙ্কা। পাওয়ারপ্লেতে তারা তোলে ৪১ রান। দলীয় ৪৯ রানে গুনাথিলাকার উইকেট তুলে নেন মুজিব উর রহমান।

সম্প্রতি টি-টোয়েন্টিতে যে কয়জন অলরাউন্ডার নিয়ে কথা হচ্ছে, ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গা তাদের মধ্যে অন্যতম। তিনিও এদিন কাজের কাজ কিছুই করতে পারেননি। অধিকন্তু ৮ বল মোকাবিলা করে মাত্র ২ রান করে আউট হন মুজিবের বলে। হাসারাঙ্গা ফিরে গেলে উইকেটে আসেন দলপতি দাসুন শানাকা। তাকে গোল্ডেন ডাকে ফিরিয়ে দেন মোহাম্মদ নবি। নবির থ্রোয়ে আউট হন হাল ধরে রাখা ভানুকা রাজাপাকসা। পরের বলে দৌড়ে রান নিতে গিয়ে আউট হন থিকশানা। ফলে একপ্রকার ধুকতে থাকে টুর্নামেন্টের আয়োজকরা। সেখান থেকে আর সোজা হয়ে দাঁড়াতে পারেনি শানাকার দল।

পাথিরানার উইকেট শিকার করেন নবি। শেষ দিকে একশ রানের মধ্যেই শ্রীলঙ্কার ইনিংস থেমে যাওয়ার শঙ্কা দেখা দেয়। সেখান থেকে করুনারত্নের কল্যাণে একশ পার করে শ্রীলঙ্কা। শেষ ব্যাটার হিসেবে আউট হন চামিকা করুনারত্নে। ৩৮ বলে তিনি করেন ৩১ রান। এটা তাদের দলীয় দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রানের ইনিংস। মদুশাঙ্কা অপরাজিত ছিলেন ১ রান নিয়ে। আফগানিস্তানের হয়ে ৩টি উইকেট নেন ফজলহক। ২টি করে উইকেট নেন মুজিব উর রহমান ও নবি। একটি উইকেট পান নাভিন উল হক।

Leave A Reply

Your email address will not be published.