সাকিব দেশের জন্য স্যাক্রিফাইস করছে: পাপন

সাকিব আল হাসান এখন বাংলাদেশ দলের সঙ্গে দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে। এদিকে দেশে তার পরিবারের পাঁচ সদস্য গুরুতর অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি। বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন মনে করেন, নিজের মা-সন্তান ও শাশুড়ির অসুস্থতা সত্ত্বেও সাকিব যে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে তৃতীয় ওয়ানডে খেলার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, এটা দেশের জন্য সাকিবের স্যাক্রিফাইস। তবে সাকিব চাইলে যেকোনো মুহূর্তে দেশে চলে আসতে পারেন। বিসিবি তাকে এ জন্য গ্রিন সিগন্যাল দিয়েই রেখেছে।

0 10,110

দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে থাকা সাকিবের পরিবার ভালো নেই। মানসিক অবসাদের জন্য প্রথমে দক্ষিণ আফ্রিকা যেতে না চাইলেও সাকিব শেষ পর্যন্ত গিয়েছেন সফরে। সেখানে প্রথম ওয়ানডেতে বাংলাদেশের জয়ের নায়ক সাকিবই। দ্বিতীয় ওয়ানডেতে হারের পর যখন বাংলাদেশ তৃতীয় ওয়ানডেতে জয়ের পরিকল্পনা আঁটছে তখন জানা গেল দেশে অবস্থান করা সাকিবের তিন সন্তান ও তার মা অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। এদিকে আগে থেকেই ক্যান্সারে অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে সাকিবের শাশুড়ি। এমন অবস্থায় দক্ষিণ আফ্রিকায় সাকিবের পক্ষে ক্রিকেট খেলা কঠিন হয়ে দাঁড়ায়।

বিসিবির গ্রিন সিগন্যাল পেয়ে সাকিব দেশে ফিরছেন তৃতীয় ওয়ানডের পর। সোমবার (২১ মার্চ) এ কথা জানিয়েছিলেন বিসিবির ক্রিকেট অপারেশন্স কমিটির চেয়ারম্যান জালাল ইউনুস। কিন্তু সেদিনই তিনি আবার জানালেন সাকিব ফিরছেন সোমবার রাতেই। এমন দোদুল্যমান অবস্থার অবসান ঘটান সাকিব নিজেই। তিনি আপাতত দলের সঙ্গে দক্ষিণ আফ্রিকায় থাকছেন। তৃতীয় ওয়ানডের পরেই দেশে ফেরার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন সাকিব।


দুঃসময়ে পরিবারের পাশে থাকতে না পারায় সাকিবের প্রতি নিজের সমবেদনা জানিয়ে মঙ্গলবার (২২ মার্চ) বিসিবি সভাপতি পাপন বলছেন, দেশের জন্য স্যাক্রিফাইস করছে সাকিব। দলের জন্য সাকিব অনেক গুরুত্বপূর্ণ। তবে সাকিব যদি দেশে ফেরার প্রয়োজনীয়তা বোধ করে তবে যেকোনো মুহূর্তে চলে আসতে পারে। বিসিবির পক্ষ থেকে সব রকমের সহায়তা করা হবে সাকিবকে।

পাপন বলেন, ‘বিসিবির পক্ষ থেকে তাকে গ্রিন সিগন্যাল দেওয়া হয়েছে, যখন ইচ্ছা চলে আসতে পারবে’

বেশ কিছুদিন ধরেই হাসপাতালে রয়েছেন সাকিবের মা শিরিন আক্তার। এমনিতেই হার্টের জটিলতা রয়েছে তার। অবস্থা কিছুটা খারাপ হওয়ায় এভারকেয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে তাকে। যদিও আগের চেয়ে কিছুটা উন্নতি হয়েছে, তবে এখনো স্বাভাবিক অবস্থা ফেরেনি বলেই খবর।

কদিন আগেই এক বছর পূর্ণ হওয়া সাকিবের একমাত্র ছেলে আইজাহ আল হাসান ও মেজ মেয়ে ইরাম হাসান নিউমোনিয়াতে আক্রান্ত। অন্যদিকে বড় মেয়ে আলাইনা হাসান অব্রিও ঠান্ডা জ্বরে ভুগছে। তিনজনই দাদির সঙ্গে একই হাসপাতালে ভর্তি আছে।

এছাড়া সাকিব আল হাসানের শাশু‌ড়ি ক্যানসারে আক্রান্ত। তাকে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। জানা গেছে, তার অবস্থা বেশ সংকটাপন্ন।

Leave A Reply

Your email address will not be published.