ক্রাইস্টচার্চে রুমের ভেতরে অনুশীলন করবে টাইগাররা

বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের টিম ডিরেক্টর খালেদ মাহমুদ সুজন জানিয়েছেন, ক্রাইস্টচার্চে সরকারি একটি আইসোলেশন সেন্টারে আছেন বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। আপাতত প্রথম তিন দিন আইসোলেশনে থাকার পর কোভিড টেস্ট করা হবে সবার। সেখানে নেগেটিভ আসা সাপেক্ষে পরের চার দিন ছোট ছোট গ্রুপে জিম করতে পারবেন তারা।

0 35

ওমিক্রনের কারণে করোনাভাইরাস নিয়ে নতুন করে শঙ্কা বেড়েছে। ক্রাইস্টচার্চে অবস্থানরত ক্রিকেট দলকে নিয়েও যে নির্ভার থাকা যাচ্ছে না। তবে, জাসিন্ডা আর্ডার্নের দেশে আইসোলেশন খুব শক্তভাবে মানা হয়।

সরকার নির্ধারিত স্থানে ৭ দিনের কোয়ারেন্টাইনে আছেন সফররতরা। রুমবন্দি সময় কেমন যাচ্ছে, অনুমান করা যায় সহজে। ওশেনিয়া থেকে ভক্তদের অভয় দিয়েছেন টিম ডিরেক্টর, ভালো আছেন সবাই।
খালেদ মাহমুদ সুজন বলেন, এখানে পৌছানোর পরে আমরা সবাই সবার রুমে উঠে যাই। এরপর এখনো কারও সঙ্গে হয়নি শুধু ভিডিও কল ছাড়া। পাকিস্তান থেকে খেলে আসার পরপরই আমাদের একটু কঠিন সময় যাচ্ছে। তাই আমি মনে করি আমাদের ২-৩ দিন কষ্ট করতে হবে তারপর আমরা গ্রুপ হিসেবে প্র্যাকটিস করতে পারব জিম করতে পারব।
নিজেদের চেনা কন্ডিশনেই পাকিস্তানের কাছে টেস্ট সিরিজে হোয়াইটওয়াশ হয়েছে মুমিনুলরা। নিউজিল্যান্ডের কন্ডিশন সে হিসেবে দুর্বোধ্য। তাই পহেলা জানুয়ারি প্রথম টেস্ট শুরুর আগে যতোটুকু সম্ভব, ওই কন্ডিশনে প্রস্তুতি ঝালিয়ে নিতে চাইছে মুমিনুলরা।
মাঠের প্র্যাক্টিস সেশনের জন্য আরেকটু অপেক্ষা করতে হবে তাদের। তবে, আইসোলেশন সেন্টারে প্রত্যেক ক্রিকেটারের রুমে ফিটনেস ঠিক রাখার সরঞ্জামের ব্যবস্থা করা হয়েছে।
বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের অলরাউন্ডার মেহেদী হাসান মিরাজ বলেন, আমাদের রুমের ভিতর থেকে সবকিছু করতে হবে। খাওয়া-দাওয়া আমাদেরকে দিয়ে দেওয়া হয় রুমের ভেতর। আমরা রুমের ভেতর থেকেই সবকিছু করছি। রুমের ভেতরের কিছু সরঞ্জাম দিয়েই আমরা অনুশীলন করব।
চলতি বছর শুরুতে ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলতে নিউজিল্যান্ডে গিয়েছিল টাইগাররা। আইসোলেশনের অনুরূপ অভিজ্ঞতা আগেও হয়েছে সেখানে। তাই খাপ খাইয়ে নিতে খুব একটা সমস্যা হওয়ার কথা নয়।
Leave A Reply

Your email address will not be published.