হতশ্রী ব্যাটিংয়ে ফলোঅনে বাংলাদেশ

ক্রাইস্টচার্চে প্রথম দিনের মতো দ্বিতীয় দিনও বাজে কাটল বাংলাদেশের জন্য। প্রথম দিন বোলিংয়ে ভুগতে থাকা বাংলাদেশ দ্বিতীয় দিনে ধুঁকেছে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা। হ্যাগলি ওভালে দ্বিতীয় দিন শেষে ১২৬ রানে অলআউট হয়ে ফলোঅনে পড়েছে বাংলাদেশ। নিউজিল্যান্ডের প্রথম ইনিংস থেকে বাংলাদেশ পিছিয়ে ছিল ৩৯৫ রানে। কিউইদের হয়ে ৫ উইকেট পেয়েছেন ট্রেন্ট বোল্ট।

0 7,905

এদিকে টেস্টে ক্রিকেটে এক অনন্য ক্লাবে যোগ দিয়েছেন কিউই বোলার ট্রেন্ট বোল্ট। টেস্টে ক্রিকেটে ৩০০ উইকেটের মাইলফলক স্পর্শ করেছেন কিউই পেসার। মেহেদী হাসানকে বোল্ড করে টেস্টে ৩০০ উইকেট পূর্ণ করেন বোল্ট। বোল্টের সতীর্থ সাউদিও ৩০০ উইকেটের ক্লাবে আছেন আগে থেকেই।

এদিকে ইনিংসের প্রথমেই ৫ উইকেট হারিয়ে ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়েছিল বাংলাদেশ। তা থেকে কিছুটা ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করেছিলেন সোহান এবং ইয়াসির। তবে ব্যক্তিগত ৪১ রানেই সাউদির বলে এলবিডব্লিউ হলেন সোহান। তবে অর্ধশতক পূরণ করেই প্যাভিলিয়নে ফিরেছেন ইয়াসির।

এর আগে হ্যাগলি ওভালে সাউদি এবং বোল্টের বোলিং তোপে তছনছ হয়ে যায় বাংলাদেশের ব্যাটিং লাইনআপ। শুরুতেই মাত্র ২৭ রানে ৫ ব্যাটারকে হারিয়ে মহাচাপে পড়ে বাংলাদেশ। সাউদি এবং বোল্ট দুজনই পেয়েছেন তিনটি করে উইকেট।

এদিকে হ্যাগলি ওভালে দ্বিতীয় দিনের শুরুতে ভালো করলেও কাজের কাজ আগেই করে ফেলেছে কিউই ব্যাটসম্যানরা। টম লাথামের ২৫২ এবং কনওয়ের ১০৯ রানের ওপর ভর করে ৬ উইকেটে ৫২১ রান করে ইনিংস ঘোষণা করে কিউইরা। বাংলাদেশের হয়ে দুইটি করে উইকেট পান শরিফুল এবং এবাদত হোসেন।

এদিকে অধিনায়ক টম লাথামকে প্যাভিলিয়নে ফেরানোর পর ঝড়ো গতিতে ব্যাটিং করতে থাকেন টম ব্ল্যান্ডেল। ৮ চারে ৬০ বলে ৫৭ রানে অপরাজিত থাকেন তিনি। এদিকে কিউই অধিনায়ককে প্যাভিলিয়নে ফেরানোর আগে নিউজিল্যান্ডের অধিনায়ক লাথামের পাশে জ্বলজ্বল করেছে ২৫২ রান। ২ ছয় এবং ৩৪ চারের কল্যাণে ক্যারিয়ারের প্রথম আড়াইশ’ রান করেছেন তিনি।

এদিকে প্রথম দিনের হতাশার পর ক্রাইস্টচার্চের হ্যাগলি ওভালে দ্বিতীয় দিনে সোমবার (১০ জানুয়ারি) দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়ায় বাংলাদেশ। দ্বিতীয় দিনের প্রথম সেশনটা বলতে গেলে বাংলাদেশের পকেটে গেছে। আগের দিনের মাত্র এক উইকেটের পর এদিন পাঁচটি উইকেট শিকার করে বাংলাদেশি বোলাররা।

তবে দ্বিতীয় দিনে এসে নিউজিল্যান্ডের ব্যাটিং অর্ডারে ধস নামলেও বাংলাদেশের জন্য তেমন লাভ হয়নি। কেন উইলিয়ামসনের অনুপস্থিতিতে নেতৃত্বের গুরুদায়িত্ব টম লাথামের কাঁধে। সেই চাপেই কি না, প্রথম টেস্টে ব্যাট হাতে তেমন জ্বলে উঠতে পারেননি। তবে দ্বিতীয় টেস্টে যেন আস্ত ‘রানমেশিন’ বনে গেলেন তিনি। ক্রাইস্টচার্চের হ্যাগলি ওভালে দ্বিতীয় টেস্টের প্রথম দিনে সেঞ্চুরি পূর্ণ করার পর দ্বিতীয় দিনে দেখা পান ডাবল সেঞ্চুরির।

নিউজিল্যান্ডের মাটিতে প্রথম ইনিংসে কোনো উদ্বোধনী ব্যাটসম্যানের দ্বিশতক পাওয়ার মাত্র পঞ্চম ঘটনা এটি, সর্বশেষ ১৯৯৭ সালে ইনিংস উদ্বোধন করতে নেমে ম্যাচের প্রথম ইনিংসে দ্বিশতক পেয়েছিলেন ব্রায়ান ইয়াং।

ক্রাইস্টচার্চের হ্যাগলি ওভালে দ্বিতীয় তথা শেষ টেস্টে রোববার (৯ জানুয়ারি) টস জিতে বল করতে নেমে তেমন কিছুই করতে পারেনি মুমিনুল বাহিনী। অন্যদিকে, নিউজিল্যান্ডের জন্য গল্পটা প্রত্যাবর্তনের। প্রথম ম্যাচে বাজে খেলার পর দ্বিতীয় ম্যাচেই ঘুরে দাঁড়িয়েছে তারা। 

Leave A Reply

Your email address will not be published.