সারাদেশকে রেলওয়ে নেটওয়ার্কের আওতায় আনার পরিকল্পনা

রেলপথ মন্ত্রী মো. নূরুল ইসলাম সুজন জানিয়েছেন, সারাদেশকে রেলওয়ে নেটওয়ার্কের আওতায় আনার পরিকল্পনা করছে সরকার। এ উপলক্ষ্যে ৩০ বছর মেয়াদী একটি মহাপরিকল্পনা নিয়ে কাজ করা হচ্ছে।

0 42

বৃহস্পতিবার (৯ ডিসেম্বর) রেলভবনে ঢাকায় নিযুক্ত সুইজারল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত নাথালি চুয়ার্ড মো. নূরুল ইসলাম সুজনের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে যান। এ সময় মন্ত্রী রাষ্ট্রদূতকে এ কথা বলেন।

রেলপথ মন্ত্রী এ সময় বলেন, বাংলাদেশ রেলওয়েকে পুরো ঢেলে সাজানো হচ্ছে। কারখানাগুলোকে আধুনিকায়ন করা হচ্ছে, নতুন ইঞ্জিন এবং কোচ আনা হচ্ছে, স্টেশনগুলোকে সংস্কার করা হচ্ছে। একটি ভারসাম্যপূর্ণ যোগাযোগ মাধ্যম হিসাবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী ২০১১ সালে আলাদা মন্ত্রণালয় গঠন করে দিয়েছেন।  তখন থেকেই রেল খাতের উন্নয়নে বিভিন্ন প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে।  ৩০ বছর মেয়াদী মহাপরিকল্পনার ভিত্তিতে রেলখাতে উন্নয়ন ঘটানো হচ্ছে। সারাদেশকে রেলওয়ে নেটওয়ার্কের আওতায় আনার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের রেল ব্যবস্থা যমুনা নদী দ্বারা বিভক্ত। পশ্চিমাঞ্চলে ব্রডগেজ এবং পূর্বাঞ্চলে মিটারগেজ দ্বারা সীমাবদ্ধ। আমরা পুরো রেল ব্যবস্থাকে একটি মাধ্যম অর্থাৎ ব্রডগেজে নিয়ে আসার লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছি। পর্যায়ক্রমে সকল সিঙ্গেল লাইনকে ডুয়েলগেজে রূপান্তর করা হবে। বিভিন্ন বন্দরের সাথে রেল কানেকশন করা হচ্ছে। ভারতের সাথে স্বাধীনতা পূর্বকালে আটটি ইন্টারচেঞ্জ পয়েন্ট ছিল। বর্তমানে পাঁচটি চালু করা হয়েছে বাকি তিনটি চালুর উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

মন্ত্রী  বলেন, গত সপ্তাহেই ইউরোপের জার্মানি, ফ্রান্স, স্পেন ভ্রমণ করে এসেছি। ইউরোপের প্রযুক্তি আমাদের রেলওয়েতে কাজে লাগাতে চাই। সুইজারল্যান্ড আমাদের দেশে প্রযুক্তিসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে বিনিয়োগ করতে পারে। সে ক্ষেত্রে উভয় দেশ একটি সমঝোতা স্মারক সই করে ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করে এগিয়ে যেতে পারবে।

এ সময় রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. সেলিম রেজা, বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাপরিচালক ধীরেন্দ্রনাথ মজুমদার, অতিরিক্ত সচিব ভূবন চন্দ্র বিশ্বাস, সুইজারল্যান্ড দূতাবাসের রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও সংস্কৃতি বিষয়ক কাউন্সিলর থমাস বমগার্টনার উপস্থিত ছিলেন

Leave A Reply

Your email address will not be published.