জনগণকেই বেছে নিতে হবে, উন্নত না কি দুর্বিষহ জীবন চান

0 12,749

আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, জনগণকেই বেছে নিতে হবে, তারা উন্নত মর্যাদাশীল জীবনের ধারাবাহিকতা চান, না কি বিএনপি-জামায়াতের দুর্বৃত্তায়নের দুর্বিষহ জীবন চান?

বিজয় দিবস উপলক্ষে বৃহস্পতিবার (১৫ ডিসেম্বর) জাতির উদ্দেশে দেওয়া এক ভাষণে এসব কথা বলেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ২০০৯ থেকে ২০২২ সাল পর্যন্ত গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত আছে। জনগণের ভোটের অধিকার নিশ্চিত রয়েছে। সে কারণেই আজ উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদা পেয়েছে বাংলাদেশ। বিএনপি-জামায়াত জোট ক্ষমতায় থাকলে কোনো দিনই বাংলাদেশ এতো উন্নতি করতে পারতো না। উন্নয়নশীল দেশ হতে পারতো না। এখন জনগণকেই বেছে নিতে হবে তারা কী চান। উন্নত মর্যাদাশীল জীবনের ধারাবাহিকতা না কি বিএনপি-জামায়াত জোটের দুর্বৃত্তায়নের দুর্বিষহ জীবন?

বিএনপি ২০০৬ সালে এক কোটি ২৩ লাখ ভুয়া ভোটারসহ নির্বাচনের চেষ্টা চালায় বলে উল্লেখ করেন শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, বিএনপির দুর্নীতি-সন্ত্রাস ও দুঃশাসনের কারণে ২০০৭ সালে দেশে জরুরি অবস্থা জারি হয়। বাতিল হয় নির্বাচন। এরপর ২০০৮ সালের নির্বাচনে বাংলাদেশের জনগণ তাদের প্রত্যাখ্যান করে। ৩০০ আসনের মধ্যে তারা মাত্র ৩০টি আসন পায়। একইভাবে ২০১৪ ও ২০১৮ সালের নির্বাচনেও জনগণ বিএনপি-জামায়াত জোটকে ভোট দেয়নি। জনগণের দ্বারা প্রত্যাখ্যাত হয়ে তারা এখন অগণতান্ত্রিক পথে ক্ষমতায় যাওয়ার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত।

 

এসইউজে/জেডএইচ/জেআইএ jn

Leave A Reply

Your email address will not be published.