প্রথম দফায় কোচ হিসেবে ৮টি ফাইনাল খেলে আটটিতেই রিয়ালকে জিতিয়েছিলেন জিদান। দ্বিতীয় দফায় রিয়াল প্রথম ফাইনালে তিনি কাল জেতাতে পারবেন রিয়ালকে?

কটি স্প্যানিশ সুপার কাপ জিতেছে রিয়াল? উত্তর ১০টি। তবে সংখ্যাটির সঙ্গে চাইলে এক যোগ করে দিতে পারেন আপনি!

আগামীকাল আরেকটি স্প্যানিশ সুপার কাপের ফাইনাল। সৌদি আরবের জেদ্দায় রিয়ালের প্রতিপক্ষ অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ। তবে রিয়ালের কোচ যখন জিনেদিন জিদান, তখন ফাইনালের আগেই রিয়ালের শিরোপা জেতার কথা ধরেই নিতে পারেন। ফাইনালে রিয়ালের জিদান যে কখনোই হারে না! এত দিনের রেকর্ড অন্তত সেটাই বলছে।

২০১৬ সালে রিয়াল মাদ্রিদের মূল দলের দায়িত্ব নেওয়ার পর জিদানের অধীনে যতগুলো ফাইনাল খেলেছে রিয়াল, সব কটিতেই জিতেছে। তিনবার চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনাল খেলে তিনবারই শিরোপা (২০১৬, ২০১৭, ২০১৮)। দুই বার ইউরোপিয়ান সুপার কাপের ফাইনাল উঠে দুবারই জিতেছেন (২০১৭ ও ২০১৮)। ফিফা ক্লাব বিশ্বকাপের ফাইনালও জিতেছেন দুটি (২০১৬ ও ২০১৭)। প্রথম দফায় রিয়ালের কোচ হওয়ার পর জিতেছিলেন স্প্যানিশ সুপার কাপের ফাইনালও (২০১৭)।

প্রথম দফায় কোচ হওয়ার পর অবশ্য ‘জাদুই’ দেখিয়েছিলেন জিদান। এই আটটি ফাইনাল তথা আটটি ট্রফি জয়ের পাশাপাশি জিতেছিলেন ২০১৬-১৭ মৌসুমের লা লিগার শিরোপাও। কিন্তু রিয়ালের সেই মধু সময় শেষ হয়েছে আগেই। বার্নাব্যুতে ‘মন্দ’ সময়েই দ্বিতীয় দফায় কোচ হিসেবে শুরু হয়েছে তাঁর। আরেক দফায় তাঁকে কোচ করে নিয়ে আসার পেছনের কারণও একটাই—রিয়ালকে স্বরূপে ফিরিয়ে আনা। তাঁর অনুপস্থিতিতে মাঝের মৌসুমেই (২০১৮-১৯) রিয়াল কোনো ট্রফিই জিততে পারেনি। পারেনি বার্সেলোনার পরে দ্বিতীয় হয়েও লিগ শেষ করতে। সেবার বার্সা, অ্যাটলেটিকোর পর ৬৮ পয়েন্ট নিয়ে লিগে তৃতীয় হয়েছিল রিয়াল।

জিদান রিয়ালে ফিরলেও প্রতিরোধ্য রূপে রিয়ালের ফেরার এখনো বাকি। নিজের সাধ্যমতো জিদান চেষ্টা করলেও রিয়ালের পারফরম্যান্সে এখনো এক ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর অভাব অনুভূত। তবে ‘জাদুর কাঠি’ তিনি হারিয়ে ফেলেছেন কিনা, আজকের ফাইনালেই প্রমাণ হয়ে যাবে! এত দিন ফাইনালে অপরাজিত থাকার যে ধারার জন্ম দিয়েছেন, কোচ হিসেবে নিজের কারিশমা টিকিয়ে রাখতে হলে আজ স্প্যানিশ সুপার কাপের ফাইনালে নগর প্রতিদ্বন্দ্বীদের বিপক্ষে জয়ই চায় রিয়ালের। নিজের ‘কমফোর্ট জোনে’ও যদি হেরে যান জিদান, তাহলে বার্নাব্যুতে তাঁর থাকার যৌক্তিকতা নিয়েও প্রশ্ন উঠবে।

যদিও আজ ম্যাচ পূর্ব সংবাদ সম্মেলনে নিজেকে আগের চেয়েও পরিপূর্ণ দাবি করেছেন জিদান। তিন চ্যাম্পিয়নস লিগ জয়ের সময়কালের চেয়ে বর্তমানেই কোচ হিসেবে নিজেকে বেশি নম্বর দিচ্ছেন কিংবদন্তি, ‘হ্যাঁ, আমার ধারণা আমি এখন আরও ভালো। আমার মনে হয়, আমার উন্নতি হয়েছে। ব্যক্তিগত জীবনে মানুষ হিসেবেও। বিভিন্ন পরিস্থিতি আশপাশের মানুষ থেকে শিক্ষা নিতে নয়। আমি এখন আমার সঙ্গীদের কথা শোনা নিশ্চিত করি এবং আমার লক্ষ্য আরও ভালো করা।’