বাঁশখালী উপজেলার সাধনপুর বাণীগ্রাম এলাকায় ছোট ভাইয়ের হাতে বড় ভাই খুন হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।
আজ মঙ্গলবার (২৫ আগস্ট) সকালে সংঘটিত ঘটনায় নিহতের নাম মোহাম্মদ এমদাদ (৩০) প্রকাশ এমরান সাধনপুর ইউনিয়নের বাণীগ্রাম ২নং ওয়ার্ডের পাহাড়ি কছুজুম নতুন পাড়া এলাকার মোহাম্মদ ইসহাকের দ্বিতীয় সংসারের ছেলে।
জানা যায়, সাধনপুর ইউনিয়নের বাণীগ্রামের পাহাড়ি কছুজুম নতুন পাড়া গ্রামের মোহাম্মদ এমদাদ চট্টগ্রাম শহরে সিএনজিচালিত অটোরিকশার লাইনম্যান হিসাবে কাজ করেন।
সেখানে যাওয়ার কথা নিয়ে মা-বাবা ও পরিবারের সদস্যদের সাথে কথা কাটাকাটি হয় তার।
এর জেরে মঙ্গলবার এমদাদকে সকালে বাড়ির সদস্যরা মিলে মারধর করলে সে বাড়ি থেকে বের হয়ে চলে যেতে চাইলে তার বাবা এবং ছোট ভাইয়েরা থাকে ধরে বাড়িতে নিয়ে আসলে আবারো মারধরের এক পর্যায়ে ছোট ভাই আমজাদ এমদাদকে ছুরিকাঘাত করে।
অপর সূত্রে জানা যায়, সৎ ভাইদের মধ্যে বাড়ির বিদ্যুৎ বিল দেওয়া না দেওয়াকে কেন্দ্র করে বিবাদের সূত্রপাত হলে এমদাদকে ছুরিকাঘাত করা হয়।
এতে তার অবস্থা অশংকাজনক হলে পরবর্তীতে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে আনোয়ারা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
এদিকে নিহত এমদাদের শ্বশুর নাজিম উদ্দীন বলেন, “সে চট্টগ্রাম শহরে গাড়ির লাইনম্যানের চাকরি করত। দুই-তিন দিন ধরে সে চাকরিতে না যাওয়ায় তার মা-বাবা ও ভাইয়েরা তার ওপর ক্ষিপ্ত হয়ে মারধর করে। এক পর্যায়ে তার ছোট ভাই আমজাদ তাকে ছুরিকাঘাত করে।
পরবর্তীতে সে মাটিতে লুটিয়ে পড়লে তার স্ত্রীর আর্তচিৎকার শুনে স্থানীয়রা থাকে আনোয়ারা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়। নিহত এমদাদের সংসারে ৮ মাস বয়সী এক কন্যা সন্তান রয়েছে।
সাধনপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মহিউদ্দিন চৌধুরী খোকা বলেন, “পারিবারিক বিষয় নিয়ে ভাইদের মধ্যে মারপিটের ঘটনায় এমদাদকে ছুরিকাঘাত করে পরে আনোয়ারা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে সেখানে মারা যায়।”
বাঁশখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রেজাউল করিম মজুমদার বলেন, “দুই ভাইয়ের মধ্যে পারিবারিক বিষয় নিয়ে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে ছুরিকাঘাত করা হলে তার মুত্যু হয়। পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে এবং লাশ ময়নাতদন্তের জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।” এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত এ বিষয়ে কেউ এজাহার দাখিল করেনি বলেও জানান তিনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here