বাঁশখালীর কালীপুর ইউনিয়নের রাজার পাড়া এলাকায় জায়গার বিরোধ নিয়ে সংঘর্ষের ঘটনায় কমপক্ষে ১০ জন আহত হয়েছে।
আজ শুক্রবার (১৭ জুলাই) সকালে কালীপুর ইউনিয়নের গুনাগরি রাজার পাড়া জামে মসজিদের সামনে সাড়ে ২৭ শতক জায়গা ও কবরস্থান নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে স্থানীয় সিরাজুল ইসলামের পুত্র মো. আবু ছালেকের সাথে ইঞ্জিনিয়ার শাহ আলমের পুত্র আবু আলম মতিন উদ্দিন গং-এর মধ্যে বিরোধ চলে আসছিল।
শুক্রবার উক্ত বিরোধীয় জায়গায় উভয় গ্রুপের মধ্যে পূর্বের বিরোধ ও গাছ কাটা নিয়ে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।
এতে জাহানারা বেগম (৩৭), ইয়াছিনুল হক (২০), মো. ফয়সাল (১৬), রাবেয়া বেগম (৩৭), মনিরা খাতুন (৩৪), মতিন উদ্দিন (৪০), নুর উদ্দিন ও মঈন উদ্দিন (৩২) সহ অন্তত ১০ জন আহত হয়।
আহতেরা বাঁশখালী হাসপাতালে সহ ব্যক্তিগতভাবে চিকিৎসা নিয়েছে।
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গুনাগরি রাজার পাড়ায় জায়গা নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল।
এ নিয়ে স্থানীয়ভাবে বেশ কয়েকবার শালিসী বৈঠকও হয়।
বর্তমানে রামদাস হাট পুলিশ ক্যাম্প, থানা ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবরে অভিযোগ রয়েছে।
ঘটনার ব্যাপারে আবু ছালেক বলেন, “আমাদের জায়গায় তারা জোর করে একটা কবর দিয়ে সেটা দখলে নিতে চায়। তা নিয়ে স্থানীয়ভাবে মীমাংসার কথা বললে তারা আসে না। আজ আবার আমাদের উপর হামলা করে।”
এ ঘটনায় তিনি বাদী হয়ে মামলার প্রক্রিয়া করছেন বলে জানান আবু ছালেক।
অপরদিকে আবু আলম মতিন উদ্দিন বলেন, “আমরা কবরস্থান পরিষ্কার করতে গেলে তারা আমাদের উপর নারী-পুরুষ মিলে হামলা করে। আমরা তিন ভাই আহত হই।”
এ ঘটনায় দুই গ্রুপের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে।
মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানা গেছে।
বাঁশখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রেজাউল করিম মজুমদার সংঘর্ষের খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে বলে জানান। অভিযোগ পেলে তদন্তপূর্বক আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান তিনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here