দক্ষিণ আমেরিকা অঞ্চলের বাছাই সুপার সানডেতে মাঠে নামছে দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী আর্জেন্টিনা এবং ব্রাজিল। সুপার ক্ল্যাসিকোর লড়াইয়ে ইপিএলে খেলা ৯ ফুটবলার পাচ্ছে না সেলেসাও কোচ তিতে। তবু নেইমারদের নিয়ে সতর্ক আলবিসেলেস্তে কোচ লিওনেল স্ক্যালোনি। গত ম্যাচে মেসি আঘাত পেলেও অনেকটাই সুস্থ আছেন বলেও জানান তিনি। সাও পাওলোতে ম্যাচটি মাঠে গড়াবে বাংলাদেশ সময় রোববার (৫ সেপ্টেম্বর) রাত ১টায়।

শতবর্ষী দ্বৈরথ, ফুটবল অঙ্গনে ঝড় তুলে নিমিষেই। ব্রাজিল আর্জেন্টিনার মহারণ মানেই উত্তেজনার পারদ তুঙ্গে। ভক্ত সমর্থকদের ঘুমহীন রাত আর কথার লড়াই। কয়েক হাজার মাইল দূরের দক্ষিণ আমেরিকা অঞ্চলের দুই দেশ হলেও বাংলাদেশে এই ম্যাচের উত্তাপ উঠে চরমে।

কোপা আমেরিকা জয়ের মাসখানেকের ব্যবধানে আবারও মুখোমুখি হচ্ছে ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা। মারাকানার সব ইতিহাস ভেঙে আলবিসেলেস্তেদের ট্রফি খরা কাটানোর পর এবার লড়াইটা সাও পাওলোতে।
আর্জেন্টিনার জন্য সুখবর পূর্ণ শক্তির দল পাচ্ছেন কোচ লিওনেল স্ক্যালোনি। নিজ ক্লাব অ্যাস্টন ভিলার সঙ্গে অনেকটা যুদ্ধ করেই গোলকিপার এমিলিয়ানো মার্টিনেজ যোগ দিয়েছেন জাতীয় দলে। তাছাড়া টটেনহ্যাম তারকা ক্রিশ্চিয়ান রোমেমো, লো সেলসোরা যোগ দিয়ে শক্ত করেছে আলবিসেলেস্তেদের রক্ষণ।
অ্যাথলেটিকো মাদ্রিদ তারকা রদ্রিগো ডি পল আর পিএসজি তারকা নেয়ান্দ্রো প্যারেদেস প্রস্তুত মাঝ মাঠের কাজটা করতে। দীর্ঘদিন পর দলের ডাক পেয়েছেন পাওলো দিবালা। ডি মারিয়া, অ্যাকুইনা, ওতামেন্ডিরা তো আছেনই। তারপরও সতর্ক থাকতে চান আর্জেন্টাইন কোচ।
স্ক্যালোনি বলেন, আমরা পুরো দলটা পেয়েছি। তবে ব্রাজিল সব সময়ই দুর্দান্ত। কোনোভাবেই অবহেলা করতে পারবেন না। এখন দলে যারা আছেন তাদের মধ্য থেকে সেরা দলটাই মাঠে নামবে ব্রাজিল কোচ। গুরুত্বপূর্ণ ফুটবলারদের ছাড়াও তারা ম্যাচ জিতেছে। কোনো সন্দেহ নাই কোচ হিসেবে আমার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ।

সবশেষ ৫ ম্যাচে জয় রয়েছে আলবিসেলেস্তেদের। বিশ্বকাপ বাছাইয়ে চিলির সঙ্গে ড্র দিয়ে শুরু হলেও এরপর টানা জয়ের মাঝে দল। রয়েছে টেবিলের ২ নম্বরে। শঙ্কার ব্যাপার হলো ভেনেজুয়েলার বিপক্ষের ম্যাচে বাজে ভাগে ট্যাকেলের শিকার হয়ে ছিলেন লিওনেল মেসি। তবে এই ম্যাচে তার খেলার সম্ভাবরই ইঙ্গিত দিলেন কোচ।
আর্জেন্টাইন কোচ বলেন, লিওনেল মেসি এখন ভালো আছে, অনুশীলনে সে ভালো সময় কাটিয়েছে। ভেনেজুয়েলার বিপক্ষে পাওয়া আঘাতে আমিও ভয় পেয়েছিলাম। তবে এই ম্যাচের আগে পুরোপুরি রিকভারি করতে পারবে বলে আশা করি। দলের পরিবর্তনের ব্যাপারটা খেলার ওপর ভিত্তি করে নেওয়া হবে।
একে ঘরের মাঠে কোপা আমেরিকার ট্রফি হাতছাড়া তার সঙ্গে দলের গুরুত্বপূর্ণ ৯ ফুটবলারের না থাকা। মানসিকভাবে প্রতিপক্ষ যখন চাঙা অবস্থায় সেখানে ব্রাজিল আছে কিছুটা পিছিয়ে। ইপিএলের ক্লাবে খেলা থিয়াগু সিলভা, ফাবিনহো, জেসুস, রিচার্লিসনদের পাচ্ছেন না তিতে।
 
ক্যাসেমিরো, মার্কুইনোস, মিলিতাও, দানিলো, বার্বোসা, নেইমারদের ওপর ভরসা রাখতে হবে সেলেসাওদের। ম্যাচটাও ঘরের মাঠে। গত ৫ ম্যাচে একটি মাত্র হার ব্রাজিলিয়ানদের। তবে বিশ্বকাপ বাছাই পর্বে টানা ৭ ম্যাচই জিতেছে ৫ বারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা। সংখ্যাটা ৮ নম্বরে নেই লক্ষ্য তিতের।
লিওনার্দো বাচ্চি তিতে বলেন, আমাদের সেরা ফুটবলাররা নেই। তবে যারা আছে তাদের ওপর আমার পূর্ণ আস্থা আছে। চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী আর্জেন্টিার সঙ্গে ম্যাচ। উত্তেজনা আর চাপ বেশি থাকবে। আমি আশা রাখি আামাদের শতভাগ জয়ের ধারা ধরে রাখতে পারব।
ব্রাজিলের কোপা আমেরিকার প্রতিশোধ নাকি প্রতিপক্ষের মাঠে জয়ের ধারা অব্যাহত রাখবে আর্জেন্টিনা। তা অবশ্য জানা যাবে ম্যাচের পরেই। সে পর্যন্ত ভক্তদের অপেক্ষায় থাকতেই হচ্ছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here