প্রথম টেস্টে ড্র ও দ্বিতীয় টেস্টে জয়ের পর তৃতীয় ম্যাচে ইংল্যান্ডের কাছে ইনিংস ও ৭৬ রানের বড় ব্যবধানে লজ্জার হার হেরেছে ভারত। বিরাট কোহলি এত বড় লজ্জাজনক হারের পেছনে দায়ী করছেন ইংল্যান্ডের ৪৩২ রানকে, যা প্রথম ইনিংসে ৭৮ রানে অলআউট হওয়া ভারতের ব্যাটসম্যানদের আরও চাপে ফেলে দেয়।

হেডিংলিতে ম্যাচ শেষে বিরাট কোহলি বলেন, ‘স্কোর বোর্ড আমাদের ভীষণ চাপে ফেলেছিল। প্রথম ইনিংসে ৭৮ রানে অলআউট হওয়ার পর আমরা জানতাম যে টিকে থাকতে হলে কঠিন লড়াই করতে হবে। কিন্তু ইংল্যান্ডের ৪৩২ রান সেই চাপকে আরও দ্বিগুণ পরিমাণে বাড়িয়ে দেয়। তাদের বোলাররাও খুব ভালো করছিল আমাদের বিপক্ষে। যে কারণে আমাদের এই হার।’


বিরাট কোহলি যোগ করেন, ‘আমরা দারুণ একটা পার্টনারশিপ গড়ে তুলেছিলাম তৃতীয় দিন। কিন্তু চতুর্থ দিন সেটা ধরে রাখতে পারিনি। ইংলিশ বোলাররা সবটা দিয়ে আমাদের ব্যাটিংয়ে ধ্বস নামিয়েছে। আর ইংল্যান্ডের মতো দেশে যে কোনো সময় ব্যাটিংয়ে ধ্বস নামতে পারে। ওরা দারুণ বোলিং করেছে। আর আমরাও ভুল করেছি। সেই ভুলেই ইংল্যান্ডের কাছে ধরা দিতে হয়েছে।’

দ্বিতীয় ইনিংসে কোহলি ও চেতেশ্বর পূজারা মিলে যখন দারুণ কিছুর আভাস দিচ্ছিলেন তখনই ইংল্যান্ডের ত্রাতা হয়ে আসেন অলি রবিনসন। কোহলিকে ৫৫ রানে আর পূজারাকে ৯১ রানে প্যাভিলিয়নে পাঠান তিনি। রাহানে ফেরেন মাত্র ১০ রান করে। এরপর রবীন্দ্র জাদেজা বাদে আর কেউই সে অর্থে দাঁড়াতে পারেননি। প্রথম ইনিংসের মতো আসা-যাওয়ার মিছিলে শেষ হয় ভারতের দ্বিতীয় ইনিংসও। জাদেজা করেন ৩০ রান। তৃতীয় দিন রোহিত শর্মা ৫৯ ও লোকেশ রাহুল ৮ রান করেছিলেন। রবিনসন নেন ৫ উইকেট, ক্রেগ ওভারটন পান তিন উইকেট।
 

এর আগে প্রথম ইনিংসে ইংলিশ বোলারদের তোপের মুখে ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে ৭৮ রানে অলআউট হয় ভারত। ইনিংসের শুরু থেকেই নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারাতে থাকে সফরকারীরা। একমাত্র রোহিত শর্মা এবং আজিঙ্কা রাহানে ছাড়া কোনো ব্যাটসম্যানই দুই অঙ্কের ঘরে পৌঁছতে পারেনি। দলের হয়ে সর্বোচ্চ ১৯ রান করেন রোহিত শর্মা। এছাড়া রাহানের ব্যাট থেকে আসে ১৮ রান। দলীয় ১ রানেই প্রথম উইকেটের পতন হয় ভারতের। রানের খাতা খোলার আগেই বিদায় নেন লোকেশ রাহুল। অ্যান্ডারসনের বলে বাটলারকে ক্যাচ দিয়ে প্যাভিলিয়নে ফেরেন তিনি। এরপর চেতেশ্বর পূজারাও টিকতে পারেননি বেশিক্ষণ।

ইংল্যান্ড নিজেদের প্রথম ইনিংসে জো রুটের সেঞ্চুরি, ররি বার্নস ও হাসিব হামিদ হাফসেঞ্চুরিতে ভর করে ৪৩২ রান করে। রুট করেন ১২১ রান। বার্নস ৬১ ও হামিদ ৬৮ রান করেন। ভারতের হয়ে ৪ উইকেট নেন শামি, দুটি করে উইকেট পান বুমরাহ, সিরাজ ও জাদেজা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here