কাবুল থেকে জরুরিভিত্তিতে লোকজনকে সরিয়ে আনার ইতিবাচক ফল নিয়ে নিশ্চয়তা দিতে পারছেন না মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। তিনি বলেন, ইতিহাসের সবচেয়ে কঠিন কাজ হচ্ছে কাবুল থেকে লোকজনকে সরিয়ে নিয়ে আসা।-খবর আরবনিউজের

তবে মার্কিন নাগরিকদের ফিরিয়ে আনতে সব চেষ্টা কাজে লাগাবেন বলে অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন তিনি। শনিবার (২১ আগস্ট) হোয়াইট হাউস থেকে দেওয়া এক টেলিভিশন ভাষণে বাইডেন বলেন, আমি প্রতিশ্রুতি দিতে পারি না যে এভাবে লোকজনকে নিয়ে আসার চূড়ান্ত ফল কোনো ধরনের প্রাণহানির ঝুঁকি ছাড়া ঘটবে।

তিনি বলেন, একজন সর্বাধিনায়ক হিসেবে আমি নিশ্চিত করে বলতে পারি, লোকজনকে পরিপূর্ণভাবে সরিয়ে আনতে প্রয়োজনীয় সব ধরনের চেষ্টা চালিয়ে যাব। আরও পরিষ্কার করে বলতে গেলে, যে কোনো মার্কিন নাগরিক দেশে ফিরতে চাইলে, তাকে নিয়ে আসা হবে।
যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বলেন, আফগানিস্তান থেকে ১৩ হাজার মানুষকে উদ্ধার করা হয়েছে। উড়োজাহাজে যেভাবে মানুষকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে, তা যথেষ্ট কঠিন কাজ ছিল।
বক্তব্য দেওয়ার সময় সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন বাইডেন। তিনি বলেন, আফগানিস্তান থেকে মার্কিনদের সরিয়ে নেওয়াকে অগ্রাধিকার দেওয়া হচ্ছে। যে ৫০ থেকে ৬৫ হাজার আফগান দেশ ছাড়তে চান, তাদেরও একইভাবে সরিয়ে নেওয়া হবে।
মাত্র ১০ দিনের মধ্যে সব প্রাদেশিক রাজধানীর নিয়ন্ত্রণ চলে যায় তালেবানের হাতে। যদিও সাবেক আফগান সরকারের হাতে ব্যাপক মার্কিন তহবিল ও সামরিক সরঞ্জামাদি ছিল। আশরাফ গনি সরকারের হাতে বিমান বাহিনী ও বিশেষ কমান্ডো ইউনিটসও ছিল। কিন্তু তবুও তারা তালেবানের কাছে খুব সহজেই পরাজিত হয়েছে।

আফগান সামরিক বাহিনী ও পুলিশ ইউনিটসের অস্ত্রাগার জব্দ করেছে তালেবান। যার মধ্যে মার্কিন নির্মিত অস্ত্র ও সাঁজোয়া যানও রয়েছে। তালেবানের বিজয়ে লজ্জিত হওয়ার পর তালেবান শাসনের বিরুদ্ধে নতুন করে তহবিল সরবরাহের ইচ্ছা নেই পশ্চিমাদের।
তালেবানের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে আফগান বাহিনীর প্রতিরোধ ভুলভাবে বিচার করা হয়েছিল বলে মনে করেন জার্মানির চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মেরকেল।
শনিবার (২১ আগস্ট) এক নির্বাচনী অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, আফগান সামরিক বাহিনীর পতন ঘটেছে বিস্ময়কর গতিতে। আমরা আরও জোরালো প্রতিরোধ আশা করেছিলাম।
এখন আফগানিস্তান থেকে লোকজনকে উদ্ধার করে নিয়ে আসার প্রতিই জোর দেওয়া হচ্ছে বলে জানিয়ে তিনি বলেন, এরপরে কী অর্জন হয়েছে কিংবা হয়নি; তা নিয়ে আলাপ করা যাবে।
এদিকে আফগানিস্তানের নিয়ন্ত্রণ নেওয়া তালেবান বিদ্রোহীদের স্বীকৃতি দেয়নি ইউরোপীয় ইউনিয়ন। শুক্রবার (২১ আগস্ট) ইইউ কমিশন সভাপতি উরসুলা ভন ডের লিয়েন বলেন, গোষ্ঠীটির সঙ্গে তারা কোনো রাজনৈতিক আলাপও করছে না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here