চীন থেকে আরও ছয় কোটি ডোজ টিকা আনার চুক্তি হবে। আর ১৫ আগস্টের মধ্যে দেশে আরও ৫৪ লাখ টিকা আসবে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

সোমবার (৯ আগস্ট) সকালে রাজধানীতে সাংবাদিকদের এ কথা জানান মন্ত্রী।

এর আগে ৩ আগস্ট জাপান থেকে অ্যাস্ট্রাজেনেকার আরও ৬ লাখের বেশি টিকা দেশে এসেছিল। করোনা টিকার বৈশ্বিক উদ্যোগ কোভ্যাক্সের আওতায় জাপান থেকে আসা টিকার এটি তৃতীয় চালান। এর আগে গত ২৪ জুলাই প্রথম দফায় ২ লাখ ৪৫ হাজার এবং ৩১ জুলাই দ্বিতীয় দফায় অ্যাস্ট্রাজেনেকার প্রায় ৮ লাখ টিকা জাপান থেকে দেশে পৌঁছায়।
এদিকে সারা দেশে শুরু হয়েছে গণটিকাদান কর্মসূচি। প্রথম দিন রোববার রেকর্ড ২৮ লাখ ৩৬ হাজার ৯৭০ জন টিকা দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে রেকর্ড ২৭ লাখ ৮৩ হাজার ১৭২ জনকে প্রথম ডোজ দেওয়া হয়েছে। অন্যদিকে দ্বিতীয় ডোজ পেয়েছেন ৫৩ হাজার ৭৯৮ জন।
গতকাল রোববার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের দেওয়া বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে,  টিকাগ্রহীতাদের অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন ২৭ হাজার ৭৯ জন। এর মধ্যে পুরুষ রয়েছেন ১৬ হাজার ২১৯ জন, নারী ১০ হাজার ৮৬০ জন।
আর ফাইজারের দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন ৪ হাজার ৬৭৪ জন। এর মধ্যে পুরুষ পেয়েছেন ৪ হাজার ১৩৫ জন, নারী ৫৩৯ জন।

আজ চীনের সিনোফার্মের প্রথম ডোজ নিয়েছেন ২৪ লাখ ৯৯ হাজার ৪৫১ জন। এর মধ্যে পুরুষ নিয়েছেন ১৩ লাখ ৫৩ হাজার ৯১৭ জন। নারী ১১ লাখ ৪৫ হাজার ৫৩৪ জন। সিনোফার্মের দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন ২২ হাজার ৪৫ জন। তার মধ্যে পুরুষ নেন ১২ হাজার ৮৮৩ জন, নারী ৯ হাজার ১৬২ জন।
মডার্না প্রথম ডোজ নিয়েছেন ২ লাখ ৮৩ হাজার ৭২১ জন। পুরুষ পেয়েছেন এক লাখ ৬১ হাজার ১৯ জন, নারী পেয়েছেন ১ লাখ ২২ হাজার ৭০২ জন। আর দ্বিতীয় ডোজ কেউ পায়নি।
স্বাস্থ্য দপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল বাসার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম জানান, সম্প্রসারিত টিকা কার্যক্রমের আওতায় ৪ হাজার ৬৪৪টি ইউনিয়ন, ১ হাজার ৫৪টি পৌরসভা এবং ১২টি সিটি করপোরেশন এলাকার ৪৩৩টি ওয়ার্ডে টিকা দেওয়া হবে। এতে ৩২ হাজার ৭০৬ জন টিকাদানকারী ও ৪৮ হাজার ৪৫৯ জন স্বেচ্ছাসেবী অংশ নেবেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here