মহামারি করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে দেশজুড়ে টিকা কার্যক্রম চলছে। যদিও এ টিকা কার্যক্রমের আওতার বাইরে ছিল অন্তঃসত্ত্বারা। কিন্তু এবার সরকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে যে অন্তঃসত্ত্বাদের শিগগিরই কোভিড টিকার আওতায় নিয়ে আসবে।

রোববার (১ আগস্ট) স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক এ তথ্য জানিয়েছেন।

কোভিড মহামারিতে উচ্চ ঝুঁকিতে থাকা জনগোষ্ঠীর অন্যতম অন্তঃসত্ত্বারা। কোভিড আক্রান্ত হলে তাদের গর্ভকালীন জটিলতা তৈরির শঙ্কার পাশাপাশি বাড়ায় মৃত্যুঝুঁকিও। কিন্তু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া বিবেচনায় শুরুর দিকে বিশ্বজুড়েই অন্তঃসত্ত্বাদের কোভিড টিকা প্রয়োগের বাইরে রাখা হয়েছিল।
বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার অবস্থানও ছিল বেশ সতর্কতামূলক। সে দৃষ্টিকোণ থেকে বাংলাদেশেও অন্তঃসত্ত্বাদের আপাতত কোভিড-১৯ টিকা না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।
তবে সাম্প্রতিক বিভিন্ন গবেষণায় দেখা যাচ্ছে, অন্তঃসত্ত্বাদের কোভিড টিকা নেওয়ার ফলে কোনো নেতিবাচক প্রভাব পড়েনি। এরই মধ্যে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, পার্শ্ববর্তী ভারতসহ বেশ কয়েকটি দেশে অন্তঃসত্ত্বাদের দেওয়া হচ্ছে কোভিড টিকা। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাও দিয়েছে ইতিবাচক সায়।
এর পরিপ্রেক্ষিতে দেশেও অন্তঃসত্ত্বাদের কোভিড টিকার আওতায় আনার দাবি উঠছে। কোভিড টিকার অগ্রাধিকার তালিকায় অন্তঃসত্ত্বাদের অন্তর্ভুক্ত করার নির্দেশনা চেয়ে শনিবার (৩১ জুলাই) উচ্চ আদালতে রিটও করেন সুপ্রিম কোর্টের চার আইনজীবী।

যার পরিপ্রেক্ষিতে সরকারও অন্তঃসত্ত্বাদের শিগগিরই কোভিড টিকার আওতায় আনতে যাচ্ছে।
এ প্রসঙ্গে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন, গর্ভবতী মায়েরা যারা আছেন, তাদের টিকার বিষয়েও আমরা চিন্তাভাবনা করছি। আমাদের কারিগরি কমিটিও মতামত দিচ্ছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাও তাদের মতামত দিয়েছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার অনুমোদন পেলে আগামীতে আমরা গর্ভবতী নারীদেরও টিকা দেব।
পাশাপাশি কোভিড টিকার ক্ষেত্রে বয়স্কদেরও অগ্রাধিকার দেওয়া হবে বলে জানান স্বাস্থ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন, কোভিডে বয়স্করাই বেশি প্রাণ হারাচ্ছেন। তাই মৃত্যুহার কমাতে বয়স্করা নিবন্ধন না করলেও তারা কেন্দ্রে গেলে টিকা দেওয়া হবে।
এছাড়া ৭ আগস্ট থেকে সপ্তাহব্যাপী ক্যাম্পেইনে সারাদেশে এক কোটি মানুষকে কোভিড টিকা দিতে চায় সরকার। কেবল জাতীয় পরিচয়পত্র নিয়ে গেলেই সে সময় টিকা দেওয়া হবে ক্যাম্পেইনে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here