ঝাড়ফুঁকে করেও প্রেমের সম্পর্ক না হওয়ায় চট্টগ্রামে নারী বৈদ্যকে কুপিয়ে খুনের করেছে এক যুবক। এ ঘটনায় আরও তিনজন গুরুতর আহত হয়েছেন। হত্যাকারী যুবককে আটক করেছে পুলিশ।

 

এক বছর আগে এক মেয়ের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলার উদ্দেশে বাঁশখালীর বৈদ্য ফাতেমা বেগমের কাছ থেকে ডাব পড়া নেন এহসান নামের এক যুবক। এরপর বিভিন্ন সময় তাবিজও সংগ্রহ করেন তিনি। কিন্তু কোনো কাজ হয়নি। আর সেই ক্ষোভ থেকেই বৈদ্য ফাতেমা বেগমকে সোমবার (১২ জুলাই) সকালে কুপিয়ে হত্যা করে এহসান। এ সময় মাকে বাঁচাতে গেলে মেয়ে জান্নাতুল ফেরদৌসসহ আরো দু’জনকে কুপিয়ে মারাত্মক জখম করেন তিনি। 

আহতদের উদ্ধার করে দ্রুত চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক ফাতেমা বেগমকে মৃত ঘোষণা করেন। বাকি তিন জন চিকিৎসাধীন। 

নিহত ফাতেমার স্বজনরা জানান, এহসান নামের ওই যুবক প্রতিদিন ডাব পড়া নিয়ে যেতে দেখেছি এ বাড়ি থেকে। 

বাড়িতে ঢুকে দা চায় সে, এরপর সেটি দেওয়ার পর মাকে কোপ দেয় দা দিয়ে, ঠেকাতে গেলে আমার ওপর হামলা করে সে। এরপর বাড়ির কাজের মেয়ের ওপরও হামলা চালায়। বলেন ফাতেমার মেয়ে।    
এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার দাবি করেছেন নিহতের স্বজনরা। 

ঘটনার পরপরই ঘাতক এহসানকে আটক করা হয় বলে জানান বাঁশখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা-ওসি শফিউল কবির। 

তিনি বলেন, যে নারী খুন হয়েছেন সেই নারীর কাছ থেকে তাবিজ নিয়েছিল এহসান এক বছর আগে এক মেয়েকে প্রেমে বশ করার জন্য। তাবিজের পর থেকে সে অসুস্থ ছিল। পরে ডাব দিয়েছিল পড়ে, আজ আবার ডাব পড়া আনতে গিয়ে সেই দা দিয়ে তাকে খুন করেছে সে। এ ঘটনায় এখনও পর্যন্ত কোনো মামলা দায়ের হয়নি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here