নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ ও সেনবাগ উপজেলার পৃথক স্থানে অভিযান চালিয়ে দুই ব্যক্তিকে আটক করেছে র‌্যাব। র‌্যাব জানিয়েছে, তারা র‌্যাব ও র‌্যাবের সোর্স পরিচয় দিয়ে সাধারণ মানুষকে ভয়ভীতি দেখিয়ে প্রতারণা করে আসছিল। এসময় তাদের কাছ থেকে নগদ টাকা ও মোবাইল উদ্ধার করা হয়েছে।

 

ঘটনার সাথে জড়িত আরও তিনজন পলাতক রয়েছে বলেও দাবি করেছে র‌্যাব। পরে শনিবার (১০ জুলাই) দুপুরে আটককৃত দুজনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে বেগমগঞ্জ থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে। 

আটককৃতরা হচ্ছেন- বেগমগঞ্জ উপজেলার রসুলপুর ইউনিয়নের রফিকপুর গ্রামের আব্দুর রশিদের ছেলে মাঈন উদ্দিন ও একই গ্রামের ইমাম আলীর ছেলে আব্দুল মান্নান। 

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, আটককৃত মাঈন উদ্দিন ও আব্দুল মন্নানসহ পাঁচজন তাদের নিজেদের র‌্যাব সদস্য ও র‌্যাবের সোর্স পরিচয় দিয়ে স্কুল শিক্ষকসহ এলাকায় বিভিন্ন লোক থেকে চাঁদা আদায় করে আসছিল। এর ধারাবাহিকতায় আসামিরা র‌্যাবের একটি প্যাড তৈরি করে তাতে স্থানীয় লোকজনের একটি নামের তালিকা তৈরি করে। 

পরে ওই তালিকায় উল্লেখিত ব্যক্তিদের দ্রুত র‌্যাব গ্রেপ্তার করবে- এমন হুমকি প্রদান ও তালিকা থেকে তাদের নাম কাটার জন্য ২০ থেকে ৩০ হাজার করে টাকা দাবি করে। এরই মধ্যে তারা একাধিক ব্যক্তির কাছ থেকে টাকা হাতিয়েও নিয়েছে। 

শুক্রবার (৯ জুলাই) রাতে এমন অভিযোগের ভিত্তিতে দক্ষিণ রফিকপুর গ্রামের রফিকপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে অভিযান চালায় র‌্যাব-১১, সিপিসি ৩ লক্ষ্মীপুর ক্যাম্পের একটি দল। অভিযানকালে বিদ্যালয়ের পাশের সড়ক থেকে মাঈন উদ্দিনকে আটক করা হয়। এসময় তার কাছ থেকে স্থানীয় ৩২ ব্যক্তির নামে তালিকার ভুয়া প্যাড, নগদ টাকা ও একটি মোবাইল জব্দ করা হয়। পরে তার দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে সেনবাগ উপজেলার বীজবাগ ইউনিয়নে অভিযান চালিয়ে আরেক আসামি আব্দুল মান্নান পন্ডিতকে আটক করা হয়। 

র‌্যাব-১১ সিপিসি-৩ লক্ষ্মীপুর ক্যাম্পের কোম্পানী কমান্ডার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার খন্দকার মো. শামীম হোসেন জানান, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আটককৃতরা ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছে। এ চক্রের অন্য সদস্যদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here