আমলা বনাম মন্ত্রী বিতর্কে এবার আমলাদের পক্ষ নিয়েছেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। বলেন, রাজনৈতিক সরকারের সিদ্ধান্তসমূহ বাস্তবায়নে সমন্বয়ের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে সচিবদেরকে। দায়িত্বাধীন জেলায় জনপ্রতিনিধিদের সঙ্গে সমন্বয় করেই কাজ করছেন তারা।

 

বৃহস্পতিবার (০৮ জুলাই) দুপুরে রাজধানীর মিন্টো রোডে তার সরকারি বাসভবন থেকে অনলাইনে চট্টগ্রাম জেলা সমন্বয় সভার বৈঠকে সভাপতির বক্তব্য দান শেষে সাংবাদিকদের এ সংক্রান্ত প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন তিনি।  

অপর এক প্রশ্নের জবাবে ড. হাছান মাহমুদ বলেন, বিএনপির মতো জোড়াতালি দিয়ে দেশ চালায় না আওয়ামী লীগ সরকার। টিকা ক্রয়ের জন্য কোনো প্রকল্পের বরাদ্দ কমানোর প্রয়োজন নেই। 

তিনি আরও বলেন, দরিদ্র জনগোষ্ঠীর জন্য অর্থ সহায়তা রেখেই সরকার কঠোর লকডাউন দিয়েছে।  এদিকে রাজধানীতে এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছন, দরিদ্র জনগোষ্ঠীর জন্য নগদ অর্থ ও খাদ্যের ব্যবস্থা না করে লকডাউন চাপিয়ে দেওয়া মানবাধিকার লঙ্ঘনের শামিল।

পরে তথ্যমন্ত্রী ডিরেক্টরস গিল্ড ও অভিনয় শিল্পী সংঘের নেতাদের সঙ্গে এক সৌজন্য সাক্ষাতে মিলিত হন। চলচ্চিত্র শিল্পী কল্যাণ ট্রাস্ট আইন ২০২১ এর আওতায় টেলিভিশন শিল্পীদের অন্তর্ভুক্ত করায় মন্ত্রীকে ফুলেল শুভেচছা ও কৃতজ্ঞতা জানান নাট্যশিল্পী ও পরিচালকরা। 

এ সময় উপস্থিত ছিলেন তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মকবুল হোসেন, এফটিপিওর চেয়ারম্যান নাট্যব্যক্তিত্ব মামুনুর রশীদ, ডিরেক্টরস গিল্ড সভাপতি সালাউদ্দিন লাভলু, সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামান সাগর, অভিনয়শিল্পী সংঘের সভাপতি শহীদুজ্জামান সেলিম, সাধারণ সম্পাদক আহসান হাবিব নাসিম ও প্রেজেন্টারস প্ল্যাটফর্মের সাধারণ সম্পাদক আনজাম মাসুদ। সম্প্রতি সংসদে আমলাদের সমালোচনা করে বক্তব্য দেন তোফায়েল আহমদসহ বেশ কয়েকজন এমপি। পরে নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী আমলাদের পক্ষে বক্তব্য দেন। 

এদিকে রাজধানীতে এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছন, দরিদ্র জনগোষ্ঠীর জন্য নগদ অর্থ ও খাদ্যের ব্যবস্থা না করে লকডাউন চাপিয়ে দেওয়া মানবাধিকার লঙ্ঘনের শামিল। 

এ সময় টিকা ব্যবস্থাপনায় সরকার ব্যর্থ হয়েছে এ মন্তব্য করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, দেশে যখন কোটি কোটি টিকা দরকার তখন কয়েক লাখ টিকার ব্যবস্থা করতে পেরেছে সরকার। বর্তমানে মজুত থাকা টিকার পরিমাণ প্রয়োজনের তুলনায় অপ্রতুল বলেও মন্তব্য করেন। 

করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে দ্রুত পর্যাপ্ত টিকার ব্যবস্থা করার পাশাপাশি দেশেই টিকা উৎপাদনের পদক্ষেপ নেওয়ার তাগিদ দেন মির্জা ফখরুল। 

ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে লকডাউন সফল করতে দরিদ্র জনগোষ্ঠীর পরিবার প্রতি নগদ ৫ হাজার টাকা ও খাদ্য সহায়তা নিশ্চিত করার দাবি জানান।
ফখরুল। বলেন, সহায়তার হাত না বাড়ালে লকডাউন ফলপ্রসূ হবে না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here