ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপের হাইভোল্টেজ ম্যাচে রাতে মুখোমুখি হবে পর্তুগাল ও ফ্রান্স। বর্তমান বিশ্বচ্যাম্পিয়নের সঙ্গে ইউরো চ্যাম্পিয়নের রোমাঞ্চকর লড়াইয়ের অপেক্ষায় ফুটবল দুনিয়া। নকআউট পর্ব নিশ্চিত হলেও গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হওয়ার লক্ষ্য ফরাসিদের। অন্যদিকে শীর্ষ ষোলোতে যেতে চাইলে জয় বা ড্র পেতেই হবে পর্তুগালকে। হাঙ্গেরির পুসকাস অ্যারেনায় ম্যাচটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় রাত ১টায়। একই গ্রুপের আরেক ম্যাচে জার্মানির বিপক্ষে লড়বে হাঙ্গেরি। অ্যালিয়েঞ্জ অ্যারেনায় এ ম্যাচটি শুরু হবে রাত ১টায়। 

ফ্রান্স-পর্তুগাল। ইউরোপের ফুটবলের দুই পাওয়ার হাউজ। গ্রুপ অব ডেথের কঠিন সমীকরণের মারপ্যাঁচে দু’দল। ‘এফ’ গ্রুপে নিজেদের শেষ ম্যাচে পর্তুগাল ও ফ্রান্সের দ্বৈরথ নিয়ে স্নায়ুচাপে সমর্থকরাও। কে জিতবে? এ চিন্তায় যেন হারাম রাতের ঘুম। ম্যাচের আগে ঘুরেফিরেই আলোচনায় ১০ জুলাই ২০১৬ স্তাদে ফ্রান্সের স্মৃতি। ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপের গেল আসরের ফাইনালে মুখোমুখি হয়েছিলো পর্তুগাল ও ফ্রান্স। অতিরিক্ত সময়ে এদারের গোলে নিজেদের ফুটবল ইতিহাসে প্রথম বড় কোন শিরোপা ঘরে তুলেছিল পর্তুগাল। ফ্রান্সের সামনে সুযোগ এসেছে প্রতিশোধের। 

মৃত্যুকূপের এ ম্যাচটা পর্তুগালের জন্য বাঁচা-মড়ার লড়াই। প্রথম ম্যাচে হাঙ্গেরিকে হারালেও পরের ম্যাচেই জার্মানির কাছে হেরেছে রোনালদোরা। নকআউট পর্বে যেতে চাইলে জয় বা ড্র পেতেই হবে সেলেকাওদের। জার্মানির বিপক্ষে ম্যাচে আত্মঘাতী গোল করেন রুবেন দিয়াস ও রাফায়েল। ফুটবলারদের ওপর বিরক্ত ফার্নান্দো সান্তোস। ইউরোতে ফর্মে থাকলেও ফ্রান্সের বিপক্ষে শেষ ৬ আন্তর্জাতিক ম্যাচেই গোল নেই রোনালদোর। তারপরেও পর্তুগিজ তারকার ওপরই ভরসা খুঁজছেন কোচ। করোনায় নেই জোয়াও ক্যানসেলো। 

পর্তুগালের কোচ ফার্নান্দো সান্তোস বলেন, আমাদের জিততেই হবে। জার্মানির বিপক্ষে যে ভুল হয়েছে সেটার পুনরাবৃত্তি কোনোভাবেই করা যাবে না। রোনালদোর মতো ফুটবলার থাকায় আমি আশা হারাচ্ছি না। সেই পারে নিজে খেলার পাশাপাশি অন্যদেরও অনুপ্রেরণা যোগাতে।

প্রতিপক্ষ ফ্রান্সের সামনে এবার সুযোগ চমৎকার এক রেকর্ডের। ১৯৯৮ সালে বিশ্বকাপ জয়ের পর ২০০০ সালে ইউরো জিতেছে ফ্রান্স। ২০১৮ সালে আবারও বিশ্বকাপ জয়ের পর প্রথম দেশ হিসেবে পরপর দুবার বিশ্বকাপ ও ইউরো জয়ের রেকর্ড গড়ার। এক জয় ও এক ড্রয়ে চার পয়েন্ট নিয়ে নকআউট পর্ব নিশ্চিত হলেও দেশমের লক্ষ্য গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হওয়া। 

ফ্রান্সের কোচ দিদিয়ের দেশম জানান, গ্রিজম্যান, এমবাপ্পে, বেনজেমা এখনও সেরা ছন্দ খুঁজে পায়নি। আশা করছি এ ম্যাচে ওরা ফর্মে ফিরবে। এ ম্যাচে জিতলে পরের রাউন্ডে অপেক্ষাকৃত দুর্বল দল পাওয়া যাবে। এ সুবিধাটা নিতেই হবে আমাদের। 

পর্তুগাল কোচের পছন্দ ৪-২-৩-১। সে তুলনায় ফ্রান্সের সম্ভাব্য ফরমেশন হতে পারে ৪-৩-৩। ইনজুরিতে ইউরো থেকে ছিটকে গেছেন ওসমান ডেম্বেলে। পরিসংখ্যানে দু’দলের ১৯ ম্যাচের মধ্যে ২৭ বারই জিতেছে ফ্রান্স। ৬ জয় আছে পর্তুগালের।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here