আনন্দবাজার পত্রিকার সাংবাদিক স্রবন্তী বন্দ্যোপাধ্যায়

প্রশ্ন: তাহসান আপনার সঙ্গে লাইভে এসেছিলেন…

মিথিলা: হ্যাঁ। তা নিয়েও কত প্রশ্ন। আমাদের সম্পর্ক জুড়ে যাবে। আমরা একটি বিজ্ঞাপনী সংস্থার প্রচারের মুখ হয়েছি মাত্র। একসঙ্গে কাজও হবে না। তাতেই কত কী গল্প তৈরি হচ্ছে।

প্রশ্ন: তাহসান কিন্তু নেটমাধ্যমে আপনাকে কটাক্ষ করা নিয়ে তীব্র বিরোধিতা করেছিলেন?

মিথিলা: তাহসান আমার প্রাক্তন স্বামী। আমরা আজও বন্ধু। আমাদের রোজ কথা হয়। মানুষকে বুঝতে হবে আমরা দুজনে এক বাচ্চার বাবা-মা। আমাদের সম্পর্কটা এখন বন্ধুর মতো। আর এই সম্পর্ক আয়রার জন্য খুব জরুরি। আমার আর তাহসানের স্বাভাবিকতার জন্যই আয়রা আমায় আজ বলতে পারে, ‘মা আমি বাবার কাছে যাব’। আমার অন্যান্য বন্ধুদের তো দেখেছি বিবাহ বিচ্ছেদের পরে পারস্পরিক সম্পর্ককে তাঁরা এত তিক্ত করেছে যে তার প্রভাব বাচ্চার ওপর এসে পড়েছে। আয়রা সেখানে স্বাভাবিক পরিবেশে বড় হচ্ছে। তবে এখন আয়রার স্কুল আর নতুন বই নিয়ে চিন্তায় আছি। কলকাতার সংসারটাও গোছাতে হবে।

 

প্রশ্ন: বাংলাদেশে তো আপনি প্রচুর কাজ করছেন?

মিথিলা: মন ভাল রাখতে কাজ করে যাওয়া ছাড়া আর কিছু করার নেই।

প্রশ্ন: ইদে আসছে রাকেশ বসুর ‘অন্তর্জলি যাত্রা’?

মিথিলা: হ্যাঁ। প্রেমিকা এবং মেয়ে দুই চরিত্রে অভিনয় করেছি। বাংলাদেশের টিভি চ্যানেলের পাশাপাশি ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মেও এই ছবি দেখা যাবে। সম্প্রতি বিজ্ঞাপনের কাজও করলাম। এর সঙ্গে ব্র‍্যাক ইন্টারন্যাশনালের আর্লি চাইল্ডহুড ডেভেলপমেন্ট প্রোগ্রাম এর প্রোগ্রাম হেড। এ ছাড়াও দুটো ছবি এবং অনেক গুলো নাটকের কাজ শেষ করলাম।

প্রশ্ন: এ ছাড়া আর কী কী করছেন?

মিথিলা: দুটো স্বল্প দৈর্ঘের ছবি করেছি। পাশাপাশি জেনেভা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পিএইচডি-ও চলছে।

প্রশ্ন: এত কিছু সামলান কী করে?

মিথিলা: শ্যুটিং করতে করতে ব্র্যাকের কাজ করি আমি। আবার অফিসে মেয়ে আয়রাকে মানুষ করতে করতে ছবির সংলাপ মুখস্থ করেছি।

প্রশ্ন: কলকাতায় কবে কাজ শুরু করবেন?

মিথিলা: ইচ্ছে তো আছে। কিন্তু তার জন্য এক টানা কলকাতায় থাকা উচিত। সেটা আর হচ্ছে কই? কয়েকটা ছবিতে কাজ করার কথাও হয়েছিল। কিন্তু লকডাউন শুরু হল, সব কাজ বন্ধ।

প্রশ্ন: সৃজিতের ছবিতে কাজ করছেন?

মিথিলা: না না। সৃজিত বউকে কোনও দিন ওর ছবিতে নেবে না।সৃজিতকে চিনি আমি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here