তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্রকে ইরানের ওপর নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করে পরমাণু সমঝোতায় ফিরে আসতে হবে।

 

ইরানের নবনির্মিত প্রেসিডেন্ট আয়াতুল্লাহ সাইয়্যেদ ইব্রাহিম রাইসি বলেছেন, তিনি মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে চান না। 

নির্বাচিত হয়ে সোমবার (২১ জুন) এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্রকে ইরানের ওপর নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করে পরমাণু সমঝোতায় ফিরে আসতে হবে। 

এরপর এক সাংবাদিক তাকে প্রশ্ন করেন, যুক্তরাষ্ট্র নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করলে তিনি বাইডেনের সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন কিনা? এই প্রশ্নে তিনি স্পষ্ট জবাব দেন, ‘না’। 

এ সময় তিনি প্রতিশ্রুতি রক্ষা না করার জন্য ইউরোপীয় দেশগুলোরও তীব্র সমালোচনা করেন এবং ওয়াশিংটনের চাপে নত না হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।
রাইসি তার সরকারের পররাষ্ট্রনীতি ব্যাখ্যা করে বলেন, বিশ্বের সব দেশের সঙ্গে সম্পর্ক ও যোগাযোগ রক্ষা করা হবে এবং ইরানের জাতীয় স্বার্থ রক্ষা করার জন্য সম্ভাব্য সব পদক্ষেপ নেবে। 

প্রতিবেশী দেশগুলোর সঙ্গে সম্পর্ক শক্তিশালী করাকে অগ্রাধিকার দেওয়া হবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, সৌদি আরবের সঙ্গে পূর্ণ মাত্রায় কূটনৈতিক সম্পর্ক প্রতিষ্ঠা ও পরস্পরের দেশে দূতাবাস পুনরায় চালু করার উদ্যোগ নেওয়া হবে। 

ইসরাইলের ব্যাপারে নিজের দৃষ্টিভঙ্গি তুলে ধরে নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট বলেন, ইরানকে ভয় না পেয়ে তেল আবিবের উচিত ফিলিস্তিনি জনগণ ও প্রতিরোধ সংগ্রামীদের ভয় করা। ফিলিস্তিনের ব্যাপারে ইরানের নীতি হচ্ছে, সেখানকার মূল অধিবাসীদের মধ্যে গণভোটের মাধ্যমে ফিলিস্তিনের ভাগ্য নির্ধারণ করতে হবে। 

ইয়েমেন যুদ্ধ প্রসঙ্গে রাইসি বলেন, সৌদি আরবকে যত দ্রুত সম্ভব ইয়েমেনে আগ্রাসন বন্ধ করতে হবে এবং সেদেশের জনগণকে বিদেশি হস্তক্ষেপ ছাড়াই তাদের ভাগ্য নির্ধারণ করতে দিতে হবে। 

১৮ জুন শুক্রবার অনুষ্ঠিত প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ব্যাপক ভোটের ব্যবধানে বিজয়ী হয়েছেন সাইয়্যেদ ইব্রাহিম রাইসি। তিনি প্রায় এক কোটি ৮০ লাখ ভোট পেয়েছেন যা মোট প্রদত্ত ভোটের প্রায় ৬২ শতাংশ। 

আগামী দেড় মাসের মধ্যেই প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব নেবেন তিনি। নির্বাচনে জয়লাভের পর এটিই তার প্রথম সংবাদ সম্মেলন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here